আপনার ব্যক্তিত্ব প্রস্ফুটিত করার ক্ষেত্রে করনিয়

By : Akter Hossain

 বাংলায় প্রবাদে আছে, বৃক্ষ তোমার নাম কি?ফলেই পরিচয়। আর এই বৃক্ষেরই মতো মানুষের জীবন। চামড়ার সৌন্দর্য নয়, মানুষের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো ব্যক্তিত্ব ।ব্যক্তিত্ববান মানুষ সকলের কাছে শ্রদ্ধার পাত্র। তবে ব্যক্তিত্ব গঠন সহজ বিষয় নয়। বিবেগ এবং চিন্তা সামঞ্জস্যতার মাধ্যমে এই পরশ পাথর অর্জন করতে হয়। এর জন্য দরকার পড়ে কিছু গুনাবলির যার বদৌলতে আপনার ব্যক্তিত্ব প্রস্ফুটিত হবে -

১.আত্মবিশ্বাস বাড়ান

যেকোনো কাজে সাফল্য পেতে হলে আত্মবিশ্বাসী হওয়াটা বেশি জরুরি। আত্নবিশ্বাস এমন একটি অদৃশ্য শক্তি যা আপনাকে সাফল্যের চূড়ায় নিয়ে যেতে পারে। আত্মবিশ্বাসহীনতা আপনার মাঝে ভয় তৈরি করে আপনাকে ব্যর্থতার দিকে ধাবিত করে। সব সময় কোন কাজে আত্নবিশ্বাস ধরে রাখাটা বেশ কষ্টসাধ্য। যে কোন কাজে নিজের আত্মবিশ্বাস বজায় রাখতে পারলে তাতে যেমন সফল হওয়া যায় তেমনি কথাবার্তা ও ব্যক্তিত্বেও সেটা ফুটে ওঠে। আত্মবিশ্বাস কম থাকলে একজন মানুষ কখনোই ব্যক্তিত্ববান হয়ে উঠতে পারে না। তাই ব্যক্তিত্ববান হয়ে উঠতে চাইলে আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর কোন বিকল্প নেই।

ক.পরিষ্কার পোশাক পরিধান       আমাদের দেশে একটি প্রচলিত প্রবাদ আছে ‘আগে দর্শনধারী পরে গুণবিচারী’। পোশাক আপনার আত্মবিশ্বাসকে অনেক প্রভাবিত করে থাকে। চেষ্টা করুন পরিষ্কার এবং মার্জিত পোশাক পরিধান করার, এটি আপনার আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি করার পাশাপাশি অন্যের চোখে আপনার ভাল একটি ভাবমূর্তি তৈরি করবে।তাই যতটা সম্ভব দেহের গড়ন ও বয়সের সঙ্গে মানানসই পোশাক পরিধান করবেন। এক্ষেত্রে অফিস থেকে শুরু করে বিয়েবাড়ি পর্যন্ত কোন জায়গায় গেলে কি ধরনের পোশাক পরিধান করা উচিত তা অবশ্যই আপনাকে মাথায় রাখতে হবে। আর মানানসই শালীন পোশাকে আপনার রুচি-বোধের পাশাপাশি ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠবে সবচেয়ে বেশি। 

খ.ইতিবাচক চিন্তাভাবনা করুন    আমরা প্রভাবিত হই সময়পরিবেশমানুষের আচার-আচরনকথাবার্তায়। তবে সবসময় যে ভালো কিছুর জন্য হই তা নয়খারাপ কিছুর দ্বারাই বেশি প্রভাবিত হই। অনেক সময় এতোটাই প্রভাবিত হইআমরা নিজেদের ভুলে যাইনিজের চিন্তা-ভাবনার জলাঞ্জলি দেই। ভাবি হয়তো সেটাই সঠিক। প্রকৃতপক্ষে আমারা সবসময় সঠিক এবং নির্ভুল জিনিসটি বুঝতে পারি না। যত ভালো চিন্তা-ভাবনা করব ততোই ভালোভাবে গড়ে উঠবো। ইতিবাচক চিন্তার ফলে মানুষ তাঁর নিজেকে পরিবর্তন করে।

গ.নিজের মত থাকুন  Wayne Dyer বলেন ‘আপনি যদি ৩০ জন মানুষের মতামত গ্রহণ করেন, ৩০ রকম ভিন্ন ভিন্ন মত পাবেন, এতে আপনি আরো বেশি বিভ্রান্ত হয়ে পড়বেন। তাই অন্যের সিদ্ধান্তকে নিজের সিদ্ধান্ত করে তুলবেন না। নিজস্ব মতামত তৈরি করুন এবং সেটি অনুসরণ করুন।

ঘ.নিজের দুর্বলতাকে জানুন  নানা কারণেই জীবন চলার পথে আমাদের মনোবল ভেঙে পড়তে পারে। নিজের ইচ্ছাগুলো পূরণ না হওয়া, সব সময় সমালোচনার মাঝে থাকা এবং জীবনে সফলতা না পাওয়ার কারণে যে কারোরই মানসিক অবস্থার অবনতি ঘটতে পারে। কিন্তু নিজেকে যদি খুব বেশি বিষণ্ণতার মধ্যে ফেলতে না চান তাহলে নিজের দুর্বলতাগুলো খুঁজে বের করা। নিজের দুর্বলতাগুলো একটি লিস্টে লিখে রাখুন।দেখবেন এক সময় আপনার দুর্বলতাই আপনার শক্তিতে পরিণত হয়েছে।

ঙ.লক্ষ্য স্থির রাখুন  লক্ষ্য স্থির রাখুন, লক্ষ্যপানে এগিয়ে যান, কোন বাধা আপনাকে আটকাতে পারবেনা। 
কোন সমস্যা আপনাকে আটকাতে পারবে না, আপনাকে কোন মানুষ আটকাতে পারবেনা। যদি কেউ আপনাকে আটকাতে পারে, সে হল একমাত্র আপনি নিজে।
সুতরাং, কোন অজুহাত নয়, লক্ষ্যকে জীবনের সাথে বেঁধে নিন, আপনি জিতবেনই!

চ.ভুল থেকে শিক্ষা নেয়া  ভুল থেকে শেখার জন্য আমাদের নিজেদের ভুলগুলোকে স্বীকার করে নিতে শিখতে হবে। কোন ভুল করলে তা স্বীকার করা এবং সেই ভুলের ফল ভোগ করার মধ্য দিয়েই আমাদের মনে সেই ভুল দ্বিতীয়বার না করার ইচ্ছা জেগে উঠে। আর যদি আমরা সেই ভুল অন্যের ঘাড়ে চাপাতে পারি তাহলে আর সেটা থেকে শিক্ষা নেয়ার ইচ্ছা থাকে না কারণ তখন আমাদের মনে হয় যে পরেরবারও এমন হলে অন্য কারো ঘাড়ে চাপিয়ে দেয়া যাবে।

তাই যদি কোন ভুল থেকে শিক্ষা নিতে চান তাহলে সেই ভুলটা নিজেকেই স্বীকার করে নিতে হবে।